নিউজ ডেস্ক, ধর্মনগর:- আবার পুনর্জীবিত হল ত্রিপুরার ইতিহাস , বাম আমলের সাংবাদিক নিগ্রহের ঘটনা আরও একবার মাথাচারা দিয়ে উঠল ।


বিগত ৩দিন ধরে রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ নেশন লাইভ বাংলার কাঞ্চনপুরের সাংবাদিক টিঙ্কু নাথ । জানাযায়, গত সোমবার থেকে কাঞ্চনপুর থানার অন্তর্গত কর্ণজয় পাড়ার বাসিন্দা কৃপেশ নাথের ছেলে টিঙ্কু নাথকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না , কোন প্রকার যোগাযোগও করা যায়নি এখনও পর্যন্ত ।  রহস্যজনক ভাবে হঠাৎ করে সাংবাদিক টিঙ্কু নাথের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাকে কে কেন্দ্র করে গোটা কাঞ্চনপুর এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে । ইতিমধ্যে ছেলের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা সম্পর্কে কাঞ্চনপুর থানায় একটি মিসিং ডাইরি করেছে সাংবাদিক টিঙ্কু নাথের বাবা কৃপেশ নাথ ।  স্বাভাবিকভাবেই মানসিক দিক দিয়ে ভেঙে পড়েছেন  টিংকুর বাবা ও তার পরিবার , অজানা আতঙ্ক গ্রাস করেছে তার আত্মীয় পরিজনদের ।


কাঞ্চনপুরে টিঙ্কুর পরিবার ও বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করলে জানা যায় গত সোমবার আনুমানিক সন্ধ্যে সাতটা থেকে সাড়ে সাতটা নাগাদ টিঙ্কু ও তার বন্ধু কাঞ্চনপুর থেকে শুকনাছড়া কলেজের দিকে যাচ্ছিল সেই সময় অভিজিৎ বরুয়া নামক এক ব্যক্তি টিংকু কে ফোন করে স্থানীয় নেতাজি ক্লাব এ ডেকে নিয়ে যায় । যদিও টিংকুর ক্লাবে যাওয়ার কোন ইচ্ছে ছিল না তবুও জোর করে অভিজিৎ বড়ুয়া, রঞ্জিত নাথ ও ক্লাব সেক্রেটারি মনিলাল নাথ সহ জনৈক কজন ব্যক্তি টিংকু কে জোরপূর্বক নেতাজি ক্লাবে নিয়ে যায় । ক্লাবে নিয়ে যাওয়ার পর টিঙ্কু ও তার বন্ধু দুজনের-ই ফোন কেড়ে নেওয়া হয় এবং টিংকুর সাথে কথা আছে বলে বের করে দেয়া হয় তার বন্ধুকে । অভিযুক্ত অভিজিৎ বড়ুয়া রাজ্যের প্রাক্তন শাসক দল সিপিএমের একজন তার নেতা বলে পরিচিত এলাকায় । 


প্রসঙ্গত কোন অন্যায়ের সঙ্গে আপস না করে প্রথম থেকেই অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিল আমাদের সাংবাদিক টিংকু । প্রতিনিয়ত অন্যায়ের বিরুদ্ধে খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে অনেক হুমকির মুখেও পড়তে হয়েছিল তাকে, কিন্তু তাতে কোনো তোয়াক্কা না করে নিজের কাজকেই সর্বাগ্রে রেখে একের পর এক অন্যায়ের বিরুদ্ধে খবর করতে থাকে টিংকু, আমরাও তার উৎসাহকে এক ফোঁটাও কমতে দেইনি । প্রতিনিয়ত অন্যায়ের বিরুদ্ধে করা তার খবর আমরা প্রকাশ করতে থাকি । বিগত কিছুদিন আগের অর্থাৎ ২৪ আগস্ট নেশন লাইভ বাংলায় কাঞ্চনপুরের খাস জমি দখল করে অবৈধ নির্মাণ ঘিরে চারজন  সিপিআইএম ক্যাডার বলে পরিচিত ব্যক্তি (অর্ধেন্দু নাথ, শিবাজী নাথ , বসু নাথ, বিধান রায়) ও একজন জামা পাল্টে বিজেপিতে যোগদান করা (অরুন চন্দ্র নাথ) বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে খবর পরিবেশন করা হয় । আর তাতেই ধৈর্যের বাঁধ ভাঙ্গে ঐ সমস্ত সমাজবিরোধীদের ।

দেখুন ২৪শে আগস্ট করা খবর –  

সোমবার ক্লাবে ডেকে নিয়ে গিয়ে শুধুমাত্র টিংকু কে মারধোর করা হয়নি, তাকে দিয়ে জোরপূর্বক একটি মুচলেখাও লেখানো হয় বলে জানা গেছে, যেখানে উল্লেখ করা আছে টিংকু আর কখনো এ ধরনের কোনো খবর পরিবেশিত করতে পারবে না  । কিন্তু সন্ধ্যেবেলা এই ঘটনার পরে আর বাড়ি ফেরেনি টিংকু ।  রাতের বেলা তার বন্ধু ও পরিবারের তরফ থেকে বহুবার তার সাথে টেলিফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও কোনো প্রকার সম্ভব হয়নি, ফলে অজানা আতঙ্ক কাজ করতে শুরু করে পরিবারের মনে । কারন এধরনের খবর পরিবেশন করায় এর আগেও উক্ত ব‍্যক্তিরা টিংকুকে প্রাণনাশের হুমকিও দিয়েছিল ।  এরপর আরও একদিন কেটে গেলেও টিংকুর কোন খোঁজ না পাওয়া যাওয়ায় কাঞ্চনপুর থানার দ্বারস্থ হয় টিংকুর পরিবার , করা হয় লিখিত অভিযোগ কিন্তু তারপরেও কেটে গেছে আরো ৪৮ ঘণ্টা তবু কোন খোঁজ মেলেনি টিংকুর ।  কি করছে কাঞ্চনপুর পুলিশ প্রশাসন ??  তাই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন ! যেখানে প্রাক্তন শাসকদলের নেতা বলে পরিচিত ব্যক্তিরা তাকে ক্লাবে ডেকে নিয়ে গিয়ে মারধর করে, সেখানে তাদেরকেও কোনপ্রকার জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছেনা পুলিশের পক্ষ থেকে বলে অভিযোগ । 


যদিও আমাদের তরফ থেকে কাঞ্চনপুর পুলিশ আধিকারিকদের সাথে যোগাযোগ করা হলে ইতিমধ্যে তারা তদন্তের কাজ শুরু করেছে যত দ্রুত সম্ভব খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে টিংকুকে বলে জানান ।  তবুও কাঞ্চনপুর পুলিশ প্রশাসন ও বর্তমান সরকারের কাছে আমাদের বিনীত আর্জি দয়া করে যত দ্রুত সম্ভব ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত করা হোক এবং দোষীদের আটক করে, খুঁজে বের করে টিংকুকে ফিরিয়ে দেওয়া হোক তার পরিবারের কাছে । 




By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]