নিউজ  ডেস্ক, কেরালাঃ- বামপন্থীরা হিন্দু সমাজ, হিন্দু সংস্কৃতি মুছে ফেলার জন্য কতটা নির্মম হতে পারে তার প্রমান এখন হাতেনাতে পাচ্ছে হিন্দু সমাজ। বামপন্থীরা এমনভাবে হিন্দু সমাজের উপর চেপে বসেছে যে সবরীমালা মন্দিরের পবিত্রতা রক্ষা করতেও অক্ষম হিন্দু সমাজ। সবরীমালা ইস্যুতে কেরল এর বাম সরকার অত্যাচারের সীমা অতিক্রম করে ফেলেছে। সবরীমালা ইস্যুতে ব্যাপকহারে হিন্দু দমন চলছে কেরলে। সবরীমালা এমন একটা মন্দির যেখানে মহিলাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ। তবে এটা কোনো নারী বিরোধী নিয়ম নয়, এমন অনেক মন্দির রয়েছে যেখানে পুরুষদের প্রবেশ নিষেধ। অর্থাৎ এটা বহুযুগ থেকে চলে আসা মন্দিরের বিশেষ নিয়ম। এই নিয়মের পেছনে বেশকিছু যুক্তিও রয়েছে। এই কারণে হিন্দু সমাজের পুরুষ ও মহিলা উভয়েই এই নিয়ম মেনে চলে।
কিন্তু বামপন্থীরা প্রথমে হিন্দু নিয়ম ভাঙার জন্য কোর্টে আর্জি জানায় এরপর মুসলিম, খ্রিস্টান মহিলাদের মন্দিরের ভেতরে প্রবেশ করানোর চেষ্টা ও লক্ষ্যে সফলও হয়। তবে বামপন্থীরা এখানেই থেমে থাকেনি, মন্দিরের ভেতরে লাগাতর মহিলা প্রবেশ করানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছে কেরলের বামপন্থী সরকার। কেরল সরকারের এই হিন্দু দমন কার্যে হিন্দু ও বিজেপি কার্যকর্তাদের সাথে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। মন্দিরের পবিত্রতা বজায় রাখার জন্য এই সংঘর্ষে ১ জন হিন্দুও প্রাণ বলিদান দিয়েছেন।
তথাকথিত উন্মাদ বামপন্থীরা বিজেপি কার্যকর্তাদের বাড়িতে বোমা ছুঁড়ে হামলা শুরু করেছে। কেরল সরকার ৪০ হাজার হিন্দুদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে, প্রায় ৩ হাজার হিন্দুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কেরল পুলিশ ব্রোকেন উইন্ডো অপেরাশন এর মাধ্যমে পুরো দেশ থেকে তিন হাজার একশ তিয়াত্তর জনকে গ্রেপ্তার করেছে। একই সায়ত্রিশ হাজার নয়শ উনোআশি জন এর উপর মামলা দায়ের করা হয়েছে।হিন্দু বিদ্বেষী উন্মও বামপন্থীরা কান্নুর স্থিত সঙ্ঘের কার্যালয়ও পুড়িয়ে দিয়েছে।

বিজেপির দাবি এই হিন্দু দমনের ঘটনা ইতিহাসের নির্মম হিন্দু দমনের মধ্যে একটা। সবরীমালা মন্দির ইস্যুতে সরকারের উচিত ছিল সংবেদনশীলভাবে জনগণের সাথে মনিয়ে চলা, কিন্তু সরকার অত্যাচারী ও দমন নীতি প্রয়োগ করে রাজ্যে হিংসা ছড়িয়ে দিয়েছে। বিজেপির রাষ্ট্রীয় প্রবক্তা নারসিংহা রাও বলেছেন এটা বিরোধী পার্টির ইস্যু নয় এটা হিন্দু সমাজের সাথে জড়িত সংবেদনশীল ইস্যু। সরকার হিন্দু ধর্মের বিরুদ্ধে গিয়ে আয়াপ্পা ভক্তদের উপর অত্যাচার শুরু করেছে বলে অভিযোগ এনেছেন বিজেপির নেতারা। তবে এই হিন্দু দমন নিয়ে এখন অবধি মুখ খুলতে রাজি নয় দেশের তথাকথিত বুদ্ধিজীবী মহল।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]