নিউজ ডেস্ক, কলকাতাঃ- রোজভ্যালি ইস্যুতে টানা ৭ ঘণ্টা জেরা সুদীপকে । 


প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যাক্তি হিসাবে অর্থের বিনিময়ে ভুঁইফোড় আর্থিক সংস্থা রোজভ্যালিকে টাকা তোলায় সুবিধা করিয়ে দেওয়ার অভিযোগে গত ২০১৭ সালের ৩রা জানুয়ারি সিবিআই গ্রেপ্তার করেছিল তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্ধ্যোপাধ্যায়কে । ১ বছরেরও বেশি সময় ভুবেনেশ্বরে সিবিআই এর বিশেষ সংসোধনাগারে বন্দী থাকার পর সম্প্রতি জামিন পান তিনি । কিন্তু এখানেই শেষ নয়, শুক্রবার আবার একই ঘটনায় সাত ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে জেরা করল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) । বেলা পৌনে ১২টায় সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে ইডি-র দফতরে কয়েক জন দেহরক্ষীকে সাথে নিয়ে যান সুদীপ বাবু । 


সন্ধ্যায় ইডি-র দফতর থেকে বেরোনোর সময় সুদীপবাবু শুধু বলেন, আমি ভাল আছি। এই বিষয়ে এখন কোনও মন্তব্য করব না। তবে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে জেরা করা নিয়ে ক্রুদ্ধ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তাঁর প্রশ্ন, সুদীপের অপরাধটা কী ? কেন বারবার ডাকা হচ্ছে সুদীপদাকে ? ওই দিনের দলীয় বৈঠকে না আসতে দেওয়ার এটা একটা চক্রান্ত হতে পারে বলেও আশঙ্কা ব্যক্ত করেন তিনি ।  


এদিকে ইডি সূত্রের খবর, সুদীপবাবু এ দিন যে-হিসেবপত্র দেখিয়েছেন, তা তদন্তকারীদের কাছে পর্যাপ্ত নয়, তাই তাঁকে আবার ডেকে পাঠানো হতে পারে। তদন্তকারীদের অভিযোগ, রোজভ্যালি হোটেল ও এন্টারটেনমেন্ট নামে বিভিন্ন প্রকল্প মারফত কয়েক হাজার কোটি টাকা বাজার থেকে তোলা হয়েছিল। সেই টাকা বিভিন্ন খাতে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ওই টাকার একটি অংশ গিয়েছে কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তির কাছে । জুলাইয়ে ওই অভিযোগের ভিত্তিতে রোজ ভ্যালির কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু-সহ তিন জনের বিরুদ্ধে বিচার ভবনে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে মামলা করে ইডি। ইডি-র এক কর্তার কথায়, এ দিন এই বিষয়ে সুদীপবাবুর কাছে জানতে চান তদন্তকারীরা। তাছাড়াও রোজভ্যালির টাকায় সুদীপবাবু বিদেশ ভ্রমণ করেছিলেন বলেও অভিযোগ। তাঁর কাছ থেকে সেই সংক্রান্ত হিসেবপত্রও চেয়ে পাঠানো হয়েছিল বলে জানা যায় । 

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]