নিউজ ডেস্ক কলকাতা ঃ-

“বুদ্ধ ঈশায় বিভেদ করিস শ্রী চৈতন্য, রসুল, কৃষ্ণ। জীব উদ্ধারে হন আবির্ভূত, একই ওরা তা জানিস নে।।” এটা শ্রী শ্রী ঠাকুর অনূকুল চন্দ্রের বানি। কিন্তু আজ তা কাজে আসেনি। এটার সারমর্ম শুধু হিন্দুরাই বোঝে? কারণ পুরান ঢাকায় পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে অনুষ্ঠিত শ্রী শ্রী ঠাকুর অনূকুল চন্দ্রের বাৎসরিক অনুষ্ঠানে মৌলবাদী ইসলাম পন্থি ও নামাজিদের হামলা।হামলার কারণ হল মাইকে শ্রী শ্রী ঠাকুর অনূকুল চন্দ্রের ভক্তিমূলক গান চলছিল নামাজের সময়।
আল্লাহ ও নবীকে শ্রী শ্রী ঠাকুর অনূকুল চন্দ্রের যতই ভালোবাসার বাণী ও সন্মানের স্থান দেউয়া হউক না কেন মৌলবাদীরা কিন্তু বিন্দু মাত্র মায়া করেনা যার উদাহারন সরুপ দেখা গেল শ্রী শ্রী ঠাকুর অনূকুল চন্দ্রের অনুষ্টানে হামলার ঘটনায়।যতই পুরুষত্তম বন্দনায় নবীকে স্থান দেন না কেন ও যতই সেকুলারের ভেক দরুণ না কেন দিন শেষে ওদের কাছে হিন্দুরা কাফের ও মালাউন। এতোদিন হতো গ্রামবাংলায় এখন হচ্ছে শহরে তাও আবার শাখারি বাজারের মতো জায়গায়।সোনার বাংলা স্বাধীন দেশে বসবাসকারী হিন্দুরা রোজ নির্যাতিত হছে। পুলিশ ডিউটিরত থাকা অবস্থায় হিন্দুদের অনুষ্ঠানে মৌলবাদীদের হামলা। প্রধান অতিথি মিজানুর রহমান বললেন মন্ত্র পড়ার দরকার নেই। আর অনুসারীরা বসে বসে শুনলো। কিন্তু এই নির্যাতনের কোন প্রতিবাদ নেই আজ উনাদের মুখে। হিন্দু গুরুভাই দের দাবী মিজানুর স্যারকে হিন্দু সম্মেলনে ডাকা বন্দো করুন। কিন্তু তিনি হিন্দু অনুষ্টানে এসে যে মন্তব্য করেন ইসলামি অনুষ্টানে এর একটুও বলেন না? 

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]