মেয়ে কালো। তাই তিন মাসের শিশুকন্যাকে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল মায়ের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত মায়েরই বছর ছয়েকের আরেক কন্যা সেই ঘটনার সাক্ষী। তাঁরই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ গ্রেফতার করেছে পূরবী পাত্র নামে ওই মহিলাকে। এই ঘটনায় বাকরুদ্ধ সুন্দরবনের গোসাবা থানার মথুরাখণ্ড গ্রামের মানুষ। স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, আট বছর আগে পূরবীর বিয়ে হয় পেশায় মত্‍স্যজীবী মথুরাখণ্ডের জীতেন পাত্রের সাথে। দম্পতির বছর ছয়েকের এক কন্যাসন্তান রয়েছে। সে ফুটফুটে ফর্সা। তিন মাস আগে দম্পতির আর এক কন্যাসন্তান হয়। এই শিশুটির গায়ের রঙ কালো। দ্বিতীয়বার কন্যা! তাও আবার কালো রঙ! রাগে শিশুটিকে ঠিকমতো পরিচর্যা করতেন না পূরবী। এমনকি এই দুধের শিশুকে মারধর করারও অভিযোগ রয়েছে পূরবীর বিরুদ্ধে। তাঁর শাশুড়ি গীতা পাত্র বলেন, ”ঘরে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়েই আমার ছোট নাতনির উপর অত্যাচার চালাতো ওর মা। বেশ কয়েকবার বৌমাকে সাবধানও করেছি। কিন্তু শোনেনি।” বুধবার সকালে গীতাদেবী ও তাঁর ছেলে জীতেন নদীতে মাছ-কাঁকড়া ধরতে গিয়েছিলেন। ঘরে কেউ থাকার সুযোগে বড় মেয়ের সামনেই তিন মাসের শিশুকে তার মা মুখে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করে বলে অভিযোগ। ইতিমধ্যে নদী থেকে ফিরে আসেন পূরবীর স্বামী ও শাশুড়ি। ছোট মেয়ের মৃত্যুর বিষয়টি নানান ভাবে স্বামী ও শাশুড়িকে বোঝানোর চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু নিজের চোখের সামনের যে ঘটনা ঘটেছে তা বাবা ও ঠাকুমাকে জানায় ওই দম্পতির বড় মেয়ে। আর এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনার কথা এলাকায় জানাজানি হতেই তুমুল শোরগোল পড়ে যায়। স্থানীয় বাসিন্দারাই গোসাবা থানার পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ এসে ওই শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। অভিযুক্ত ‘মা’ কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। পরে স্বামীর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ওই মহিলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। রুজু হয়েছে খুনের মামলা। এমন ঘটনায় হতভম্ব এলাকার সবিতা সর্দার, অলকা মণ্ডল, মিনতি মণ্ডলরা বলেন, ”জন্মদাত্রী মা হয়ে কীভাবে নিজের শিশুকে খুন করল! এমন মায়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই আমরা।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]