নিউজ ডেস্ক, কলকাতাঃ – বিধ্বংসী আগুন শহর কলকাতায় , পুজোর আগে বিপুল ক্ষতি । 


কেটে গেছে প্রায় ১০ ঘণ্টা, এখনও দাও দাও করে জ্বলছে বাগরি মার্কেট । একটু একটু করে নিজেদের সব পুঁজি শেষ হয়ে যেতে দেখছেন ব্যবসায়ীরা । গতকাল রাত থেকে অবশিষ্ট যে যা পেরেছে সরানো হচ্ছে করেছেন তাঁদের জিনিসপত্র। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দমকল, বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের কর্মীরাও তৎপরতার সঙ্গে কাজ করছে। ঘটনাস্থানে দমকলের ৩২টি ইঞ্জিন এই মুহূর্তে কাজ করলেও রাত থেকে আগুন এখনও নেভানো সম্ভব হয়নি। উলটে আগুনের ভয়াবহতা আরও বাড়ছে । এই অবস্থায় দ্রুত পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে ডাকা হল ভারতীয় সেনাবাহিনীকে। সেনাবাহিনীর আধিকারিকরা তাদের সঙ্গে অত্যাধুনিক সমস্ত উপকরণ নিয়ে এসেছেন, রয়েছে নানারকম আধুনিক যন্ত্রও। যেখানে দমকল পৌঁছতে পারবে না সেখানে আর্মিকে ব্যবহার করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। 


প্রসঙ্গত বলতে হয় শনিবার রাত আড়াইটে নাগাদ আগুন লাগে বড়বাজারের বাগড়ি মার্কেটে । মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে । মার্কেটের ভিতর দাহ্য বস্তু থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে৷ আগুনের তীব্রতা এতটাই যে ভোরের আলো ফোটার পরই কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায় গোটা এলাকাটি ৷ সেইসাথে এলাকাটি ঘিঞ্জি হওয়াতেও কাজে বেগ হচ্ছে দমকল কর্মীদের । দমকল দপ্তর সুত্রে খবর অনুসারে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে সম্ভবত শর্ট সার্কিট থেকেই আগুন লাগে, গ্রাউন্ড ফ্লোরেই প্রথম আগুন লাগে। তার পরেই আগুন বাগরি মার্কেটের বিভিন্ন তলায় ছড়িয়ে পড়ে। ভিতরে দাহ্যবস্তু থাকায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে আগুন ৷ তবে মার্কেটের ভিতর থেকে বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা ৷ ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় ৷ রয়েছেন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার ৷ ঘটনাস্থলে রয়েছেন দমকলের ডিজি-ও সেইসাথে প্রতি মুহূর্তের খবর নিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায় । 


ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, বাড়িটিতে প্রচুর দাহ্য পদার্থ মজুত ছিল। ছিল ওষুধ তৈরির রাসায়নিকও। দমকল আধিকারিকদের আনুমান, দাহ্য পদার্থ মজুত থাকার কারণেই পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিয়েছে। পুজোর মুখে এ ধরনের আগুনে বড়সড় ক্ষতির মুখে ব্যবসায়ীরা। প্রাথমিক ভাবে, কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। বাগরি মার্কেটের ব্যবসায়ী সংগঠনে পক্ষ থেকে জানান হয়েছে আশঙ্কাগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের অসস্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী, বিদেশ সফর থেকে ফেরার পর তিনি তাদের সাথে কথা বলবেন যাতে পুজোর আগে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের সরকারের তরফ থেকে একটু সাহায্য দেওয়া যেতে পারে । 


যদিও, আগুনের জেরে প্রাণহানির খবর এখনও পর্যন্ত নেই। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর নেই, গভীর রাতে আগুন লাগায় মার্কেটের ভিতর কেউই আটকে নেই । পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সব রকম চেষ্টা চালাচ্ছে দমকল । 

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]