নিউজ ডেস্ক নয়াদিল্লী ঃ-

প্রয়াগরাজে ২০১৯ সালের কুম্ভের দ্বিতীয় শাহী স্নান। এই স্নান সম্পন্ন করা হয় মৌনি আমাবশ্যার দিনে। এইবার এই তিথিটা আজ ৪ ফেব্রুয়ারি পড়লো। প্রথম রাজকীয় স্নানের সাথে 15 জানুয়ারী, ২০১৯ এ শুরু হওয়া কুম্ভ মেলা মার্চের ৪ তারিখ পর্যন্ত চলবে।বিশ্বের বৃহত্তম ধর্মীয় সম্মেলনের স্বীকৃতি দিয়েছে ইউনেস্কো কুম্ভকে। এই মেলায় আসা সাধু ও আখড়া আকর্ষণের কেন্দ্র থাকে। এদের মধ্যে এক আখড়া নিরঞ্জনি আখড়া, যার মধ্যে সত্তর শতাংশ সধু-সন্ন্যাসী উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত।
এর মধ্যে রয়েছে ডাক্তার, আইন বিশেষজ্ঞ, অধ্যাপক, সংস্কৃত পণ্ডিত ও আচার্য।এই আখড়ার মহেশানন্দগিরি ভূগোল এর প্রফেসর, বলকানন্দ জি ডাক্তার এবং পূর্ণানন্দগিরি আইন বিশেষজ্ঞ এবং সংস্কৃত পণ্ডিত।সন্ত স্বামী আনন্দগিরি নেট কোয়ালিফাইড।এই আখড়ার দেড়শ জন এর মধ্যে একশ এর বেশি উচ্ছ শিক্ষিত।আখড়া পরিষদের অধ্যক্ষ নরেন্দ্র গিরি জানান নিরঞ্জনি আখড়া প্রয়াগরাজের হরিদ্বারে পাঁচটি স্কুল ও কলেজে পরিচালনা করে।তাদের সংস্কৃত কলেজও রয়েছে হরিদ্বারের।নিরঞ্জন আখড়া খুবই প্রষিদ্ধ।নিরঞ্জন আখড়ার স্থাপন করা হয়েছিল নয়শ চার বছর আগে গুজরাটের মাডবী তে।
সব আখড়া গুলুর মধ্যে নিরঞ্জনিআখড়া সবচেয়ে বিখ্যাত।এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিক্ষিত সাধু-সন্ন্যাসীরা শিব পরম্পরা কে মেনে চলেন।কার্তিক উনাদের আরাধ্য দেব।যাকে দেবতাদের সেনাপতি বলা হয়।আদিগুরু শংকরাচার্য সনাতন হিন্দু ধর্মের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোককে একত্রিত করে বিভিন্ন আখড়ার সূত্রপাত করেন যার মধ্যে প্রসিদ্ধ আখড়া- শ্রী নিরঞ্জনি আখড়া, শ্রী জুনা আখড়া, শ্রী মহানির্বান আখড়া, শ্রী অটল আখড়া, শ্রী আনন্দ আখড়া, শ্রী পঞ্চগনি আখড়া, শ্রী গোরক্ষনাথ আখড়া, শ্রী বৈষ্ণব আখড়া, শ্রী নির্মল আখড়া, ও শ্রী নির্মোহী আখড়া।
শংকরাচার্য বুঝতে পারেন বিদেশী শক্তির মোকাবিলা করার জন্য শুধু মাত্র আধ্মাতিক শক্তি যথেষ্ট নয়। উনি যুবক সাধুদের শারীরিক গঠন এবং অস্ত্র শিক্ষার উপর জোর দেন।অনেক রাজা মহারাজাও বিদেশী আক্রমণকারীদের হাত থেকে বাঁচার জন্য অনেকবার নাগা সাধুদের সাহায্য নেন।আহমেদ শাহ আবদালি গোকুল আক্রমণ করলে নাগারাই গোকুলকে রক্ষা করে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]