ত্রিপুরা বিধানসভায় আসন সংখ্যা মাত্র ৬০টা। কিন্তু তাতে কি ! পদ্ম চিহ্নে দাঁড়াতে চেয়ে প্রত্যাশীর সংখ্যা রোজই বাড়ছে।রাজ্য সভাপতির কাছে রোজ জমা হচ্ছে শয়ে শয়ে বায়োডাটা । 

দিন পালটাচ্ছে , আগে যেখানে বিজেপির কর্মকর্তা দের সাথে কেও দেখাই করত না , এখন বিজেপি দপ্তরে পরছে লম্বা লাইন । পাহাড়ের উপজাতি এলাকায় নিশ্চিহ্ন আর সমতলে সামান্য – এই ছিল যে বিজেপির হাল কিন্তু কেন্দ্রিয় উপনির্বাচনের পর পাহাড়ে দ্বিতীয় আর সমতলে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে বিজেপি । 


লক্ষ্য এখন ২০১৮ র বিধানসভা , তাই সংখ্যালঘু, ওবিসি, যুব, মহিলা মোর্চা— দলের সবক’টি গণসংগঠনকে নামানো হয়েছে ময়দানে , যারফলে এখন পর্যন্ত মোট ৩১৭০ বুথের প্রায় ৮৬%-এ তারা পৌঁছতে পেরেছে । ইতিমধ্যে কংগ্রেস থেকে তৃণমূল ঘুরে আসা সুদীপ রায়বর্মণ সহ ৬ বিধায়ককে দলে টেনে বিধানসভাতেও আনুষ্ঠানিক ভাবে বিরোধী দলের স্বীকৃতি মিলে গিয়েছে । 

অপরদিকে এই মুহূর্তেই যেমন তিন দিনের সফরে রাজ্যে রয়েছেন বিজেপি মহিলা মোর্চার সর্বভারতীয় সভানেত্রী বিজয়া রাহতকর , সুত্রের খবর অনুসারে গুজরাতের ভোটপর্ব মিটে গেলে চলতি মাসেই আসার কথা দলের সভাপতি অমিত শাহ ও জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর । এছাড়াও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ-সহ অন্যান্য রাজ্যের একাধিক মুখ আছে সম্ভাব্য সফরকারীর তালিকায়।

রাজ্য সভাপতি বিপ্লব দেব তার একটি বক্তব্যে বলেন যে তরুণ প্রজন্ম আমাদের সঙ্গে তাছাড়াও উপজাতি এলাকার আইপিএফটি, আইএনপিটি-ও আসতে চাইছে বিজেপি-র সঙ্গে । ‘ভয়মুক্ত ত্রিপুরা’ গড়ার ডাক দিয়ে রাজ্য জুড়ে ‘পরিবর্তন যাত্রা’ ইতিমধ্যে শুরু করেছেন তারা । এখন শুধু দেখার বিষয় এটাই ক্ষমতায় এলে বিজেপি-র ছাতায় ভাগ্য পরিবর্তন হবে ত্রিপুরা রাজ্যের ?

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]