নিউজ ডেস্ক, নিউ দিল্লীঃ- তিন তালাক অর্ডিন্যান্সে সিলমোহর দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা

তাৎক্ষণিক তিন তালাককে ফৌজদারি অপরাধের তকমা দিয়ে জেল-জরিমানার ব্যবস্থা করতে এবার আইন আনল কেন্দ্র সরকার। বুধবার সাংবাদিকদের এই কথা জানালেন কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ । অপেক্ষা শুধু রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের , মাননীয় রাষ্ট্রপতি সই করে দিলেই এই অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী ‘তিন-তালাক’ বললেই শাস্তির ব্যবস্থা চালু হয়ে যাবে। 

যদিও এ বিষয়ে শীতকালীন অধিবেশনে লোকসভাতে তিন তালাক বিল পাশ হয়ে গেলেও, রাজ্যসভাতে এই বিল আটকে যায়। সংসদে বিল আসার পরে অভিযোগ উঠেছিল, মোদী সরকার পরিবার ভাঙার রাস্তা তৈরি করছে। তাই সেইসময় সংখ্যা গরিষ্ঠতা না থাকায় রাজ্যসভাতে এই বিল পাশ করাতে পারেনি নরেন্দ্র মোদী সরকার। বিরোধী দলগুলি তিন তালাক বিলের বিভিন্ন ধারা নিয়ে আপত্তি জানিয়েছিল, তার মধ্যে ছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসও । তাই তিন-তালাক বিলে ৩টি সংশোধন এনে পুনরায় রাজ্যসভায় পেশ করা হলে, বিরোধীদের সমর্থন ছাড়াই পাশ হয়ে যায় বিল । যে তিনটি সংশোধনী আনা হয়েছে তাতে বলা হয়েছে তিন-তালাক একটি জামিন-অযোগ্য অপরাধ বলেই গণ্য করা হবে সেইসাথে যে বা যারা তিন-তালাকের শিকার হবে, তিনি বা রক্তের সম্পর্ক আছে এমন আত্মীয়রাই শুধুমাত্র অভিযুক্তের বিরুদ্ধে এফআইআর করতে পারবে । তবে বিচার শুরুর আগে অভিযুক্ত ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে নিজের স্বপক্ষে আবেদন করতে পারবে এবং যদি ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে সমঝোতা হয় ২ পক্ষের মধ্যে তবে ইচ্ছা করলে মামলা তুলে নেওয়ার সংস্থানও রাখা হয়েছে সংশোধিত বিলে।

এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ জানান, তাঁরা বিলটিতে তিনটি সংশোধনী আনলেও, বিরোধীরা বিলটিকে সমর্থন করার ব্যাপারে উদ্যোগী হয়নি, তারপর বিরোধী নেতা গুলাম নবি আজাদের সঙ্গে কথা বলেলেও তার কাছ থেকে কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি। কিন্তু প্রতিদিন তিন তালাক নিয়ে এত অভিযোগ আসছে যে, আমাদের পক্ষে বিরোধীদের সমর্থনের জন্য আর অপেক্ষা করা সম্ভব নয় । সেইসাথে তিনি আরও বলেন ভোটব্যাঙ্ক রাখতে কংগ্রেস ওই বিল সমর্থন করছে না। সনিয়া গান্ধী একজন মহিলা হয়ে ও মহিলা নেত্রী হয়েও মুসলিম মহিলাদের অধিকারের প্রশ্নে চুপ থেকেছেন। এবার সনিয়াজির সঙ্গে মায়াবতী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও অনুরোধ— আপনারা সমর্থন করুন । রবিশঙ্করের যুক্তি, ২০১৭-র রিপোর্ট অনুযায়ী জানুয়ারি থেকে অগস্ট পর্যন্ত ২২৯টি তিন তালাকের খবর মেলে। রায়ের পরেও ২০১টি তিন তালাকের ঘটনা ঘটেছে। থানায় গেলে পুলিশ বলছে, আইন নেই। তাই এবার মাননীয় রাষ্ট্রপতি সই করে দিলেই এই অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী ‘তিন-তালাক’ বললেই শাস্তির ব্যবস্থা চালু হয়ে যাবে। 

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]