নিউজ ডেস্ক, মিলন নাগ, ধর্মনগরঃ- ড্রাগসের মারন কামড়ে উত্তর ত্রিপুরা জেলার একমাত্র পলিটেকনিক কলেজ । 

সারা ত্রিপুরা জুড়ে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নেশা মুক্ত গড়ার ডাকে সাড়া দিয়ে চলছে নেশা বিরোধী অভিযান। পুলিশের পাশাপাশি সতর্ক ছাত্রছাত্রী থেকে শুরুকরে রাজ্যের প্রতিটি পরিবারের অভিভাবকরাই । কিন্তু তা সত্বেও তবুও নেশার গ্রাস থেকে উদ্ধার করা যাচ্ছে না যুবসমাজকে । উন্মুক্ত পরিবেশের গণ্ডী পেড়িয়ে নেশার বিষ ছড়িয়ে পড়ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতেও । এমনই ভয়ঙ্কর অবস্থা উত্তর ত্রিপুরা জেলার একমাত্র পলিটেকনিক কলেজে “নর্থ ত্রিপুরা ডিস্ট্রিক্ট পলিটেকনিক কলেজ”-এর । কিছুদিন আগে কলেজ ইউনিফ্রম পড়া অবস্থায় ড্রাগস সংগ্রহ করার সময় পলিটেকনিক কলেজের দুই ছাত্রকে হাতেনাতে ধরে ফেলে ধর্মনগরের এক ট্রাফিক পুলিশ কর্মী । কিন্তু সেবার তারা নাবালক হওয়ায় অভিভাবক ডেকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। 

তারপরেও পরিস্থিতির কোন পরিবর্তন হয়নি । সূত্রে খবর অনুসারে, শুধু ছাত্ররা নয়, নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ছে কলেজের ছাত্রীরাও ।  গতকাল রাতে ধর্মনগর থানার পুলিশ শিবু পাল নামের এক যুবকের বাড়িতে হানা দিয়ে ড্রাগস ব্যবহারের সিরিজ ও সামগ্রী সহ হাতেনাতে ধরে শিবু পাল সহ পলিটেকনিক কলেজের দুজন ছাত্রকে । যারফলে পুলিশের অনুমান ধৃত শিবু পাল এর হাত ধরেই ড্রাগস পোঁছে যাচ্ছে পলিটেকনিক কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে । 

এই বিষয়ে ধর্মনগর থাকার ওসি বেনুমাধব দে জানান, অনেকদিন ধরেই শিবু পালের গতিবিধির ওপর নজর রাখা হচ্ছিল । তার বিরুদ্ধে নেশা সামগ্রী ব্যবহার সহ নেশা সামগ্রী পাচারের গুরুতর অভিযোগ আগেও এসেছে এলাকাবাসীদের কাছ থেকে । অপর দিকে প্রায়ই বাইক নিয়ে বহিরাগত যুবকদের আনাগোনা করতে দেখা যাচ্ছিল পলিটেকনিক কলেজে । ঠিক কি কারনে বহিরাগতরা কলেজে আসত তা নিয়ে প্রশ্নও দানা বেধেছিল জনমনে । ঠিক সেই মুহূর্তে কলেজ ছাত্র সহ ড্রাগস ব্যবসায়ীকে পুলিশ আটক করায়, আসল চিত্রটা পরিষ্কার হয়ে যায় । অপর দিকে এমন ঘটনা সামনে আসতেই উৎকণ্ঠায় দিন কাটাতে শুরু করেছেন অভিভাবকরা । তবে কলেজের প্রিন্সিপাল তীর্থরাজ সেনকে এবিষয়ে জিজ্ঞেসাবাদ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই। কলেজে সিসি ক্যামেরা রয়েছে, তিনি এখন থেকে সব কিছু নীরীক্ষণ করবেন। তবে কলেজের বাউন্ডারি না থাকায় বহিরাগতরা অবাধে প্রবেশ করে বলে স্বীকার করেছেন প্রিন্সিপালের।  

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]