চুরের বাড়িতে সামাজিক অনুষ্ঠান তাই চোরকে ধরতে আরো দু’একদিন সময় লাগবে , আর এই ঘটনায় ব্যাপক উদ্বেগ সমগ্র এলাকায়। মুঙ্গিয়াকামি পুলিশের বিরুদ্ধে এমনটাই অভিযোগ করল এক দোকান মালিক। ঘটনা খোয়াই জেলার তেলিয়ামুড়া মহকুমার মুঙ্গিয়াকামি থানা এলাকায়। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, মুঙ্গিয়াকামি থানার অন্তর্গত মুঙ্গিয়াকামি বাজার এলাকার সঞ্জীত দেববর্মার দোকান থেকে একটি এলইডি টিভি একটি গ্যাসের সিলিন্ডার ও একটি মিউজিক সিস্টেম সহ দোকানের আরো অনেক জিনিস সহ প্রায় ৫০ হাজার টাকা মূল্যের জিনিস চুরি করে নিয়ে যায় চোরের দল। আর চুরির কাণ্ডের ঘটনার তিন দিন কেটে গেলেও পুলিশের কোনো ভূমিকা না থাকায় দোকান মালিক পুলিশের উপর আস্থা হারিয়ে নিজেই চুরের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ে। একটা সময় সোমবার বিকেল নাগাদ সাফল্য পায় দোকান মালিক চোরকে ধরার ক্ষেত্রে। থানায় নামধাম জানিয়ে অভিযোগ করলেও পুলিশ এখন পর্যন্ত চোরকে ধরতে সক্ষম হয়নি কোনো এক অজ্ঞাত কারণে। আরো জানা যায় মুঙ্গিয়াকামি থানা এলাকার বিভিন্ন গ্রামে প্রতিদিনই কোন না কোন বাড়িতে হানা দিয়ে চোরের দল হাতসাফাই করে নিয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে পুলিশ প্রশাসন কুম্ভ নিদ্রায় এমনই অভিযোগ করলেন এলাকাবাসীরা। জানা যায় দোকান মালিক সঞ্জীত দেববর্মা খবর পায় যে একেই থানা এলাকার জুম বাড়ির সুশীল দেববর্মার ছেলে রথীশ দেববর্মা তার সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে ঐদিন চুরি কান্ড ঘটায়। এই চোরের বাড়ি থেকে মিউজিক সিস্টেম টি উদ্ধার হয়। আর বাকি দ্রব্য গুলির কোন হদিস পাওয়া যায়নি। সঞ্জীত দেববর্মা মুঙ্গিয়াকামি থানায় মামলা করলে পুলিশ বাহিনী অভিযুক্ত চুরের বাড়িতে হানা দেয়। তখন চলছিল ওই বাড়িতে একটি সামাজিক অনুষ্ঠান। ওই বাড়ি থেকে মিউজিক সিস্টেম টি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে এলোও সামাজিক অনুষ্ঠানের দোহাই দিয়ে কোনো এক অজ্ঞাত কারণে ওই বাড়ি থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ এমনটাই জানালো সঞ্জীত দেববর্মা। উল্লেখ্য মুঙ্গিয়াকামী থানা এলাকার বিভিন্ন গ্রামে বিভিন্ন ধরনের নেশা সামগ্রী সেবন ও জোয়ার রমরমা দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। যার কবলে পড়ে যুব সমাজ আজ ধবংসের পথে। আর অন্যদিকে মুঙ্গিয়াকামী থানা বাবুরা সব জেনেশুনেও আজ নীরব দর্শকের ভূমিকায়। যা বিগত দিনগুলিতেও দেখা গিয়েছিল যার ফলশ্রুতিতে থানায় অনেক রদবদলও হয়েছিল। তা আজও বিদ্যমান। এদিকে চুরি কাণ্ড নিয়ে অর্থাৎ পুলিশের নাকের ডগায় যেখানে এই দোকানের ঠিক পাশের সিআরপিএফ বাহিনীর একটি ক্যাম্প রয়েছে সেখানে কি করে চোরের দল হাত সাফাই করলো দেখা দিচ্ছে অনেক প্রশ্ন। এই ভাবেই মুঙ্গিয়াকামি থানার ভূমিকা চলতে থাকলে একদিন মুঙ্গিয়াকামী এলাকাবাসীর ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে যাবে। হয়তোবা গড়ে তোলা হবে থানার বিরুদ্ধে বিশাল আন্দোলন।

By admin

5 thoughts on “চুরের বাড়িতে সামাজিক অনুষ্ঠান, তাই চোরকে ধরতে আরো দু’একদিন সময় লাগবে পুলিশের এধরণের ঘটনায় উদ্বেগ মুঙ্গিয়াকামি এলাকায়”
  1. It’s genuinely very complicated in this full of activity life to listen news on Television, so I just use the web for that purpose, and
    get the most up-to-date news.

  2. We’re a group of volunteers and starting a new scheme in our
    community. Your web site offered us with valuable information to work on. You have done a formidable
    job and our whole community will be grateful to you.

  3. I think this is one of the most vital information for
    me. And i’m glad reading your article. But want to remark on some general things, The website style is ideal, the articles is really excellent : D.
    Good job, cheers

  4. Right here is the perfect site for anyone who wishes to find out about this topic.
    You understand a whole lot its almost hard to argue with you (not that I actually will need to…HaHa).
    You definitely put a new spin on a topic that’s been written about for many years.
    Wonderful stuff, just excellent!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]