নিউজ ডেস্ক, ত্রিপুরাঃ-ধর্মনগরের পশ্চিম চন্দ্রপুরে জামাল উদ্দিন ও কুটি মিয়াঁর বাড়ীতে তল্লাশি চালিয়ে বাইশ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট ও দুইশ গ্রাম হিরোইন এবং তিনটি মোবাইল সহ নগদ পাঁচ লক্ষ বিরানব্বই হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ।ঘটনার বিবরণে জানা যায়,২৪শে জানুয়ারি ধর্মনগরে এমএল০৫এল২৩২৭ নম্বরের একটি বলেরো গাড়িকে দেখে সন্দেহ দেখা দেয় আরক্ষা প্রশাসনের কর্মীদের,ঐ গাড়িটিকে এসকর্ট করছিল টিআর০৫বি৭২০৬ নম্বরের একটি বইক।খবর পেয়ে আজই সন্দেহ জনক এই বলেরো গাড়িটিকে ধাওয়া করেন জেলা পুলিশ সুপার ভানুপদ চক্রবর্তী সহ পুলিশ বাহিনী।এরপর এই গাড়িটি আটক করা হয় কুটি মিয়াঁর বাড়ি থেকে।
উল্লেখ্য যে এই কুটি মিয়াঁ পশ্চিম চন্দ্রপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন সিপিআইএম মেম্বার মনির উদ্দিনের ভাই।পুলিশ সূত্রে জানা যায় ইয়াবা,ট্যাবলেট,হিরোইন,নগদ টাকা ছাড়াও একটি হাতির দাঁতও পাওয়া যায়।

যদিও পুলিশ ফরেনসিক টেস্ট না হওয়া পর্যন্ত হাতির দাঁতের বিষয়ে এখন বিস্তারিত কিছু বলতে পারছেনা।অপরদিকে একটি পরিত্যাক্ত ঘরে ড্রাগসের মিনি বারও পাওয়া যায়।এই বারের ভেতরে থাকা ড্রাগ সেবন কারী সহ জামাল উদ্দিন ও কুটি মিয়াঁ পুলিশকে দেখে পালিয়ে গেলেও কুটি মিয়াঁর বাড়ী থেকে হিরোইন সহ একজনকে আটক সক্ষম হয়েছে পুলিশ,যদিও তদন্তের স্বার্থে ধৃতের নাম জানান নি জেলা পুলিস সুপার।এ ছাড়াও এএস০১এএম৭০১৫ নম্বরের একটি হুন্ডাই আই২০ গাড়ি এবং এসকর্টকারী টিআর০৫বি৭২০৬ বইকটিও আটক করা হয়।অভিযোগ যে দীর্ঘদিন ধরে ধর্মনগরের পশ্চিম চন্দ্রপুর এলাকায় এই ড্রাগস ব্যবসা অবাধে চললেও কাউকে আটক করা সম্ভব হয় নি।তবে উত্তর জেলার পুলিশ সুপার গুয়েন্দা বিভাগকে কাজে লাগিয়ে বহুদিন ধরে নজর রাখার পর আজই এই সাফল্য এলো।আটক করা ড্রাগসের বাজার মূল্য কয়েক কোটি টাকার উপর। পুলিস এনডিপিএস ধারায় মামলা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।আজকের এই নেশা বিরোধী অভিযানের সাফল্যে পর এটা বলাই যেতে পারে যে ধীরে ধীরে ত্রিপুরা নেশা মুক্তির দিকে এগুচ্ছে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]