নিউজ ডেস্ক, নয়া দিল্লী ঃ-

বিজেপি বিরোধী দল গুলি যত দিন যাচ্ছে ভোটব্যাঙ্কের জন্য এক বিশেষ সম্প্রদায়কে লাগাতার তোষণ করতে শুরু করেছে। তার প্রমান মিললো আবার লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগে দিল্লির আম আদমি পার্টি মুসলিম সম্প্রদায় এর জন্য এক বড় ঘোষণা করলো। কিছুদিন আগেই কেজিরিওয়াল কলকাতায় ব্রিগেড সমাবেশে এসে আর এক তোষণকারী বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের  জোটে এ হাত মেলান এবং এক হিন্দুত্ব বিজেপি বিরোধী জোট তৈরি করেন। ভারতবর্ষে একটা সম্প্রদায়কে তোষণ করছেন, এটাই প্রধান উদেশ্য সরকারে আসা।ভোট ব্যাঙ্কের লোভে কিছু রাজনৈতিক দলের নেতারা কতটা তোষণ করতে পারেন তা ধারণার বাইরে।
সম্প্রতি কেজরিওয়াল ঘোষণা করেছেন যে এবার থেকে মসজিদের এর ইমাম দের ভাতা ডবল করে দেওয়া হবে। আগামী লোকসভা নির্বাচনে কিভাবে মুসলিম সম্প্রদায়কে নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক করা যায় সেই উদ্যেশ্যেই এমনটা করলেন তিনি। কেজরিওয়াল ঘোষণা করেন এইবার থেকে ইমামদের ভাতা দশ হাজার থেকে একলাফে বাড়িয়ে আঠারো হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। এর ফলে দিল্লির পনেরশ মসজিদ এর পনেরশ ইমাম এবার থেকে আঠারো হাজার টাকা করে ভাতা পাবেন।
দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর এই নোংরা তোষণ নীতি আজ সবার  সামনে চলে এসেছে। কিছুদিন আগেই কেজরিওয়াল ইমাম দের ডেকে বিজেপি কে হারানোর জন্য এক মিটিং করে তার পর  আজ ভাতা বাড়ানোর ঘোষণা দেন। এর পর থেকে স্পষ্ট  যে বিজেপি বিরোধী দল গুলি ২০১৯ এ মোদী কে হারাতে তোষণ এর এক নোংরা রাজনীতি শুরু করেছে।
ভাবার বিষয় হল, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলির তোষণ  শুধুমাত্র একটা রাজনীতি মনে হলেও আগামি প্রজন্মের জন্য এটা একটা বিরাট সমস্যা সৃষ্টি করবে,আর যদি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাও বাধে এর জন্যও এই তোষণ নীতিই দায়ী থাকবে বলে মনে করে দেশের তাবড় রাজনৈতিক বিশ্লেষক গন ।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]