ধর্মনগর: ১২ মার্চ রাতে ধর্মনগর চাইল্ড লাইনের কাছে গিয়ে ১৪ বছরের নাবালিকা মেয়েটি বলে তার থাকার কোন জায়গা নেই ,সেই চাইল্ড লাইন মেয়েটিকে হোমে নিয়ে নেয়। তারপর ধীরে ধীরে মেয়েটির সাথে ঘটে যাওয়া প্রত্যেকটি ঘটনা খুলে বলে চাইল্ড লাইনের সুপারেন্টেন্ড এর কাছে।সে জানায় ধর্মনগর শহরতলি বিবেকানন্দ রোডের ডি এল মার্কেটের স্বর্ণ ব্যবসায়ী সমীর নাহা তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক বেশ কয়েকবার করেছে। তারপর চাইল্ড লাইন নাবালিকা মেয়েটিকে ধর্মনগর জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায় এবং মেডিকেল টেস্ট করানো হয় ।

মেডিকেল টেস্টের পর মেডিক্যাল সুপারেন্টেন্ড ফোন মারফত উদয় শংকর দেব নাথ c w c চেয়ারম্যান কে জানান যে বেশ কয়েকবার নাবালিকা মেয়েটির সাথে শারীরিক সম্পর্ক হয়েছে তারপর চাইল্ড লাইন তাদের তদন্ত শুরু করে তদন্তক্রমে স্বর্ণ ব্যবসায়ীর নামে আজ চাইল্ড লাইনের পক্ষ থেকে স্বর্ণ ব্যবসায়ী সমীর নাহার বিরুদ্ধে ধর্মনগর ময়িলা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। চাইল্ড লাইন অভিযোগ পাওয়ার পরেই বিশাল পুলিশবাহিনী স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে নিজ দোকান থেকে অভিযুক্তকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে অভিযুক্ত স্বর্ণ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির376(2)n(3)এবং 4পক্স ধারায় মামলা রুজু তদন্তে শুরু করেছে ধর্মনগর মহিলা থানার পুলিশ।

এদিকে নাবালিকা মেয়ের কাছে জানতে চাইলে সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরার সামনে গিয়ে বলে যে ওর বড় বোনের সাথে ভাড়া বাড়িতে যেত স্বর্ণ ব্যবসায়ী এবং তার সাথে জোরপূর্বক ভাবে শারীরিক সম্পর্ক করেছে।এখন দেখার বিষয় পুলিশি তদন্তে আসল রহস্য কি বেরিয়ে আসে। কিন্তু কথা হলো মেয়েটির বাড়ি থাকা সত্বেও মেয়েটি চাইল্ড লাইনের কাছে গেলো কেন? তাহলে কি মেয়েটির সাথে গার্জিয়ানের কোন দুর্ব্যবহারের সম্পর্ক রয়েছে?পুলিশের তদন্তে আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে- সর্ষের মধ্যেই কি ভূত বিরাজ করছে?

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]