নিউজ ডেস্ক, দেবাশিষ মণ্ডল, মালদাঃ- আবারও অভিযোগ উঠল ভারতীয় রেলের কর্তব্যরত টিকিট চেকারের বিরুদ্ধে ।


যাত্রী হয়রানি ও দালাল দের দৌরাত্ব বন্ধ করতে বুহুদিন আগে থেকেই ভারতীয় রেল ই-টিকিট পরিষেবা চালু করেছে । যারপর থেকে ই-টিকিট ও মোবাইলের ম্যাসেজ টিকিট হিসাবে সম্পূর্ণ বৈধ । কিন্তু বৈধ ই-টিকিট থাকলেও প্রৌড় দম্পতি রেল যাত্রীকে ট্রেন থেকে মাঝপথে নামিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল টিটির বিরুদ্ধে। শনিবার হাওড়া – শিলিগুড়ি আপ শতাব্দী ট্রেনের ঘটনা। অভিযোগ ই-টিকিটের সাথে কোন আসল পরিচয় পত্র না থাকার আজুহাতে কর্মরত টিটি ওই দম্পতিকে পথে বোলপুর স্টেশনে নামিয়ে দেয়। পরে রেল পুলিশের সহযোগিতায় ওই বর্ষীয়ান দম্পতি আপ সরাইঘাট এক্সপ্রেসে নিজেদের গন্থব্য মালদহে পৌঁছায়। এদিন রাতে মালদায় পৌঁছে শতাব্দী এক্সপ্রেস ট্রেনের ওই টিটির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন তারা । 

জানা গিয়েছে, রেল যাত্রী ওই দম্পতির নাম বঙ্কিম চন্দ্র রায়(৮১) ও সান্তা রায়(৭১)। বাড়ী মালদহের ইংরেজবাজার শহরের ঝলঝলিয়া বিদ্যাসাগর কলোনি। বঙ্কিমবাবু এক জন অবসর প্রাপ্ত আইবি আফিসার। তিনি কলকাতায় গিয়েছিলেন চোখের চিকিৎসা করাতে। সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী। শনিবার বিকেলে হাওড়া থেকে আপ শতাব্দী ট্রেনে ওঠেন বাড়ীর উদ্দেশ্য। তাদের সঙ্গে ট্রেনের ই-টিকিট ছিল। প্রমাণ পত্র হিসাবে ছিল ভোটার কার্ড ও আধার কার্ডের জেরক্স। কিন্তু ওই ট্রেনের টিটি তাদের কাছে আসল পরিচয় পত্র দেখতে চায়। দেখাতে না পারলে টিটি তাদের ট্রেন থেকে নেমে যেতে বলে। আসুস্থ বঙ্কিমবাবু বহু আনুরোধ করলেও কোন কথায় কর্ণপাত করেনি টিটি। পথে বোলপুর স্টেশনে ট্রেন দাঁড়ালে তাদের নামিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে জিআরপি থানার দারস্থ হন বঙ্কিমবাবু, তাদের সহযোগিতায় আপ সরাইঘাট এক্সপ্রেসে মালদায় পৌঁছায় বর্ষীয়ান ওই দম্পতি , পরে মালদায় পৌঁছে মালদহ রোড পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করেন তারা ।

দেখুন ভিডিও :-  

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This is todays COVID data

[covid-data]